নাজমুল মোল্লা, কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধিঃ

ক্ষুব্ধ নদী পাড়ের বাসিন্দা ও ভ্রমণ পিপাসুরা ,তাদের সঙ্গ দিচ্ছেন হিজরা ,যুবক ও তরুণেরা। কুষ্টিয়াতে চলতি বর্ষা মৌসুমে নৌ ভ্রমণ ও ভূরিভোজনের আড়ালে চলছে অসামাজিক কার্যকলাপ প্রকাশ্য মাদক সেবন মাত্রা অতিরিক্ত শব্দ দূষণ দিনে-রাতে প্রকাশ্য চলা এ সব কর্মকাণ্ড বন্ধ করতে আন্তরিকতা দেখা যায়নি পুলিশসহ জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের। ক্ষুব্ধ নদী পাড়ের বাসিন্দা ও ভ্রমণ পিপাসুরা।সরেজমিনে দেখা যায় কু্ষ্টিয়া হরিপুর শেখ রাসেল সেতু এলাকা, তালবাড়িয়া , কুমারখালীর শিলাইদহ, যদুবযরা, খোকসা, পদ্মা ও গড়াই নদীতে দেখা গেছে, বেশিরভাগ ভ্রমণের নৌকার সামনে দৃষ্টিকটু পোশাকে নাচছেন নর্তকীরা।সিনেমা স্টাইলে তাদের সঙ্গ দিচ্ছেন হিজরা ,যুবক ও তরুণেরা। ছাউনির ভেতরেও চলছে নাচ। সেখানকার পরিবেশটা আরও লজ্জাজনক। তবে অন্য একটি নৌকার কাছাকাছি আসতেই নর্তকীরা সামনের অংশে থেকে দ্রুত চলে যাচ্ছেন ছাউনির ভেতরে।অনুসন্ধানে জানা যায়, কথিত এ সব নর্তকীরা মূলত যৌনকর্মি ও হিজরা, বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা থেকে এদের মোটা অংকের টাকা দিয়ে আনা হচ্ছে। অভিযোগ আছে, দিনে নাচের মাধ্যমে ‘আনন্দ’ দিলেও রাতে ঘটছে অসামাজিক কার্যকলাপ। এ ধরণের নৌকা গুলো বেশিরভাগ অংশ কৌশলে পর্দা দিয়ে ঢেকে রাখছেন নৌকার মালিকরা। এই বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার ফোনে ফোন দিলেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।নদী পাড়ের এলাকাবাসী ও ভ্রমণ পিপাসুদের দাবি এই সকল অসামাজিক কার্যকলাপ ও অতি মাত্রার শব্দ দূষণ রুখতে দ্রুত স্হানীয় প্রশাসন যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.