স্টাফ রিপোর্টার

এবারের টুর্নামেন্টটি হওয়ার কথা ছিল ভারতে। কিন্তু দেশটিতে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করায় বিকল্প ভেন্যুতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আয়োজনের কথা শোনা যাচ্ছিল আগে থেকেই। তার মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে ছিল সংযুক্ত আরব আমিরাত। সেখানেই বসছে বিশ্বকাপের এবারের আসরটি।

ক্রিকেটের জনপ্রিয় ওয়েবসাইট ‘ইএসপিএন ক্রিকইনফো’ জানিয়েছে, আগামী ১৭ অক্টোবর থেকে আরব আমিরাতে শুরু হতে যাচ্ছে ২০২১ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। ১৬ দলের এই টুর্নামেন্টের ফাইনাল হবে ১৪ নভেম্বর।

‘ক্রিকইনফো’র প্রতিবেদন অনুযায়ী, আইপিএল ফাইনালের পরই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপটি মাঠে গড়াবে। তবে আইসিসির পক্ষ থেকে এখনও এই ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক কোনো বিবৃতি আসেনি।

করোনার কারণে গত মে মাসে স্থগিত হয় আইপিএলের এবারের আসর। টুর্নামেন্টের দ্বিতীয়পর্ব শুরু হওয়ার কথা আরব আমিরাতেই, আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে। ফাইনাল ১৫ অক্টোবর। সেক্ষেত্রে আইপিএল ফাইনাল শেষ হতে না হতেই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে মাতবে ক্রিকেট বিশ্ব।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ডে দুই গ্রুপের খেলা হবে আরব আমিরাত এবং ওমানে। এই রাউন্ডে মোট ১২টি ম্যাচ হবে। প্রতি গ্রুপ থেকে দুটি করে দল কোয়ালিফাই করবে, যারা যোগ দেবে সেরা আট দলের সঙ্গে।

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে টি-টোয়েন্টিতে সেরা আট দলের মধ্যে থাকতে না পারায় বাংলাদেশকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ডে খেলতে হবে। সেখানে বাকি সাত দল হলো-শ্রীলঙ্কা, আয়ারল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস, স্কটল্যান্ড, নামিবিয়া, ওমান এবং পাপুয়া নিউগিনি।

সেরা আট দল আর প্রথম রাউন্ড থেকে কোয়ালিফাই করা চার দল মিলে হবে ১২ দলের ‌‘সুপার টুয়েলভ’। সেখানে মোট ৩০টি ম্যাচ থাকবে। শুরু হবে ২৪ অক্টোবর থেকে।

সুপার টুয়েলভ-এ দুই গ্রুপে ৬টি করে দল থাকবে। প্রতি গ্রুপ থেকে দুটি করে চারটি দল উঠবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে।

সুপার টুয়েলভ-এর ম্যাচগুলো আরব আমিরাতের তিন ভেন্যু দুবাই, আবুধাবি এবং শারজাহতে অনুষ্ঠিত হবে। দুটি সেমিফাইনাল ও ফাইনাল মিলিয়ে তিনটি প্লে-অফ ম্যাচও হবে এই ভেন্যুগুলোতে।

আপনার মতামত লিখুন