মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি:

পৌরসভার বহুতল ভবন নির্মাণ আইন অমান্য করে মানিকগঞ্জের দাশড়া এলাকায় এক শতাংশ ভূমির উপর ইমারত নির্মানের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ডের দাশড়া মৌজায় এক শতাংশ জমির উপর পৌরসভার অনুমোদন ছাড়া ও বিল্ডিং কোড অমান্য করে ৫তলা বিশিষ্ট ভবন নির্মাণ করছে শিপ্রা রানী সাহা ও বাবুল সাহা। পৌর কর্তৃপক্ষ বার বার ভবন নির্মাণ বন্ধ করতে নোটিশ দিলেও ভবন নির্মান কাজ বন্ধ করেননি তিনি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, এক শতাংশ জায়গার উপর ৫ তলা ভবনের এক তলার ছাদ ঢালাইয়ের কাজ প্রায় শেষের দিকে। নির্মাণাধীন ভবনটির সাথেই রয়েছে পল্লী বিদ্যুতের লাইন সংযুক্ত খুঁটি। ঝুঁকি নিয়ে ভবনটির নির্মাণ কাজ করছে শ্রমিকরা।

স্থানীয়রা জানান, পৌরসভার দাশড়া মৌজার এসএ ১৫৩৭,আর এস ১৯০২ নং দাগের ডোবা ভুমির এক আনার এক শতাংশ ভুমির দক্ষিণ দিক দিয়ে পুর্ব-পশ্চিমে লম্বালম্বি ৬ ফুট প্রশস্ত চলাচলের রাস্তার জন্য পদাধিকার পত্রে মালিক এলাকাবাসী। সেই চলাচলের রাস্তা দখল করে ৫তলা বিশিষ্ট ভবন নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে শিপ্রা রানী সাহা। এক শতাংশ ভূমির উপর পৌরসভার অনুমোদন ছাড়া ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে যা সম্পূর্ণ বে-আইনী এবং ঝুঁকিপূর্ণ।

এলাকাবাসী আরো জানান, যে জায়গার উপর ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে সেই এক শতাংশ জায়গার ৬ ফুট প্রশস্ত রাস্তার মালিক নির্মাণাধীন ভবনের পিছনের বাড়ীর মালিকরা। সেই রাস্তা দখল কওে ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে। এ নিয়ে এলাকায় একাধিকবার বিচার-সালিস হলেও নির্মাণ কাজ বন্ধ হয়নি।

এর আগে স্থানীয় গনমাধ্যম কর্মীরা সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে শিপ্রা সাহা ও বাবুল সাহার বাধার মুখে পড়েন। শিপ্র সাহা সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে মারমুখি ভুমিকায় তেড়ে আসেন এবং কেমেরা সিনিয়ে নিতে হামলা করেন।

এ ব্যাপারে নির্মাণাধীন ভবনটির মালিক শিপ্রা রাণী সাহা বলেন, পৌরসভার অনুমোদন নিয়েই ভবন নির্মাণ করতেছি। পৌরসভার ইঞ্জিনিয়াররা প্রতিনিয়তই নির্মাণ কাজ তদারকি করছে। এলাকাবাসী ঈর্ষান্বিত হয়ে ভবন নির্মাণে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেছে ও অভিযোগ দিয়েছে।এ নিয়ে আওয়ামী লীগের উচ্চ পদস্থ নেতাদের নিয়ে সালিসও হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে মানিকগঞ্জ পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী বিল্লাল হোসেন, ভবনটির নির্মান কাজ বন্ধ রাখার জন্য শিপ্রা সাহা কে নোটিশ প্রদান করা হয়েছে তিনি কাজ বন্ধ না রাখলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ পৌরসভার প্যানেল মেয়র আব্দুর রাজ্জাক রাজা বলেন, এলকাবাসী ওই ভবনের নির্মাণ কাজ বন্ধে পৌরসভায় আবেদন করলে মেয়র মহোদয় আমাকে সরেজমিনে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেয়। নির্দেশ পেয়ে আমি নির্মান কাজ বন্ধ করে দেই এবং পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলীকে বিষয়টি অবগত করি। তবে শিপ্রা রাণী সাহা পৌরসভার আইন অমান্য করে এখনো ভবনের নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.