মির্জা মাহামুদ হোসেন রন্টু নড়াইল:-

নড়াইলের কালিয়ায় কেবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক লাইসেন্সধারী প্রতিষ্ঠান লাইসেন্স বিহীন প্রতিষ্ঠানের চাপে কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। প্রশাসন রহস্যজনক কারণে নিরব রয়েছে।

এ বিষয় কালিয়া ফ্রেন্ডস কেবল নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠানের স্বত্ত্বাধীকারী অলিপ সাহা অবৈধ ব্যবসা বন্ধ ও প্রতিকার চেয়ে কালিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর আবেদন করেছেন।এছ্ড়াা প্রতিকার চেয়ে তিনি সরকারী বিভিন্ন দফতরে এর অনুলিপি প্রেরণ করেছেন।

কালিয়া উপজেলার নড়াগাতী ফ্রেন্ডস কেবল নেটওয়ার্কের স্বত্ত্বাধিকারী লাইসেন্স নং এফও ৫০৬ রেজিঃ নং-২২০১ অলিপ সাহার লিখিত অভিযোগে জানা যায়,কালিয়া উপজেলার নড়াগাতী থানার জয়নগর ইউনিয়নের কেশবপুর গ্রামের মো.আসাদ চৌধুরীর ছেলে রুবেল চৌধুরী এবং নড়াগাতী থানা ও গ্রামের আমির হোসেন মোল্যার ছেলে মো.জিয়াউর রহমান শামীমের বৈধ ব্যবসা এবং বৈধ সিগন্যাল নেই। পূর্ব শত্রুতার জেরে অবৈধভাবে অন্য জেলা থেকে সিগন্যাল নিয়ে লাইসেন্স বিহীন প্রতিষ্ঠান অভিযোগকারীর গ্রাহকদের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে তাদের অবৈধ ছবি চালানোর জন্য চাপ দিচ্ছে। এর পূর্বে অভিযোগকারী প্রতিষ্ঠানের তার রাতে কেটে ফেলে এবং নুড রুবেল চৌধুরী চুরি করে নেয়। এতে গ্রাহকদের ভোগান্তির হয়। এ বিষয় নড়াগাতী থানায় জিডি হয়। (যার নং-২২৪ তাং-০৭.১০.২০)।

কেবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক পরিচালনা আইন-২০০৬ এর ৪(১) ধারা অনুসারে লাইসেন্স প্রাপ্ত না হয়ে কোন ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারে না। এছাড়া কেবল টেলিভিশন পরিচালনা ও লাইসেন্স বিধিমালা ২০১০ এর বিধি ৩ এর উপ-বিধি ৭ মতে এক জেলার সিগন্যাল অন্য জেলার সঞ্চালন করা যায় না। তারপরও নড়াগাতী থানার জয়নগর ইউনিয়নের উক্ত রুবেল চৌধুরী,শাহ্ মো.জিয়াউর রহমান শামীম ও লাইসেন্স আবেদনকারী প্রোঃ শাহ্ মো.ফিরোজ মোল্যা বন্ধু কেবল নেটওয়ার্ক নামে লাইসেন্স আবেদনে উল্লিখিত মাদার কন্ট্রোল রুম জননী কেবল নেটওয়ার্ক কালিযার নাম উল্লেখ করেন। তবে এধরনের প্রতিষ্ঠানের কোন অস্বিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি। তারা অবৈধভাবে ভিন্ন জেলা খুলনা ভিশনের সিগন্যাল ব্যবহার করে প্রশাসনের নাকের ডগার ওপর অবৈধভাবে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। এর আগে অন্য জেলা থেকে সিগন্যাল গ্রহনকারী ও লাইসেন্স বিহীন ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের নিমিত্তে বিটিভি কন্ট্রোলার/লাইসেন্স ম্যানেজার কর্তৃক বিগত নং-১৫.৫৪.০০০০.০৩০.৬৮.০০১.১৮-৩৫৬৩ তাং-২৩.১১.২০ এর নং-১৫.৫৪.০০০০.০৩০.৬৮.০০১.১৮-৪৭০১/১ তাং-০৮.০৬.২১ স্মারকে দুইটি চিঠি জেলা প্রশাসক এর নিকট প্রেরণ করেন।

প্রথম চিঠি অনুযায়ী জেলা প্রশাসক কালিয়ার পূর্বের ইউএনওকে অইনগত ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি বলে তারা অভিযোগে উল্লেখ করেছেন।

এ বিষয় বন্ধু কেবল নেটওয়ার্ক নামে কেবল ব্যবসায়ী শাহ্ মো.ফিরোজ মোল্যা যুগান্তরকে বলেন,‘বর্তমান ভিন্ন জেলা খুলনা ভিশন কেবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক নড়াগাতী এলাকায় চালু আছে। লাইসেন্সের জন্য আবেদন করা হয়েছে।’

এ প্রসঙ্গে কালিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.আরিফুল ইসলাম বলেন,‘যাদের বৈধ কাগজপত্র নেই,তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.