বিশেষ প্রতিনিধিঃ

চলমান কঠোর বিধিনিষেধে, জনসমাগম ঠেকাতে ও মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করতে গিয়ে জনতার ধাওয়ার শিকার হন কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার, কচাকাটা থানার এএসআই বুলবুল ইসলাম ও কনস্টেবল আজমাইন ইসলাম। এ ঘটনায় কচাকাটা থানায় সরকারি কাজে বাঁধা প্রদানের অপরাধে ১২ জনের নাম উল্লেখ এবং আরোও কয়েকজনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করে পুলিশের পক্ষ থেকে একটি মামলা হয়।

পুলিশ জানায়, চলমান কঠোর বিধিনিষেধ কাযর্কর এবং স্বাস্থ্যবিধি মানাতে, রবিবার (২৫ জুলাই) পৌনে সাতটার দিকে, কচাকাটা বাজারে পেশাগত দ্বায়িত্ব পালন করছিলেন পুলিশের এএসআই বুলবুল ইসলাম ও কনস্টেবল আজমাইন ইসলাম। দ্বায়িত্ব পালনকালে গরুর হাটের দিকে ব্যাপক জনসমাগম দেখতে পাওয়ায়, সেটি রোধ করতে যান তারা। এসময় কয়েকজন জনতা দৌড় দিলে, তাদের মধ্যে একজনের হাতে থাকা বাজার মাটিতে পড়ে যায়। এসময় কিছু লোক উত্তেজিত হয়ে উল্টো এএসআই বুলবুল ইসলাম ও কনস্টেবল আজমাইনকে ধাওয়া করে। উক্ত ধাওয়ার ঘটনায় এএসআই বুলবুল কচাকাটা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় সড়কের পাশে অবস্থিত তার ভাড়া বাসায় প্রবেশ করেন। এসময় উত্তেজিত জনতা লাঠিসোটা নিয়ে তার বাসার সামনে অবস্থান নেয় এবং বাসার গেট ভেঙে ফেলার চেষ্টা করে। পরে খবর পেয়ে অফিসার ইনচার্জসহ পুলিশের অন্যান্য সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে, উত্তেজিত জনতাকে শান্ত করে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসেন এবং এএসআই বুলবুলকে সুরক্ষার জন্য থানায় নিয়ে যান।

উক্ত ঘটনায়, কুড়িগ্রাম জেলার পুলিশ সুপার সৈয়দা জান্নাত আরা সোমবার (২৬ জুলাই) সকাল ১১টায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং স্থানীয়দের সাথে মতবিনিময় করেন।

পুলিশ সুপার সৈয়দা জান্নাত আরা উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুলিশের মামলা দায়ের করার বিষয়টি দৈনিক সময়ের বার্তাকে নিশ্চিত করেন। 

Leave a Reply

Your email address will not be published.