হাসিবুল ইসলাম, জেলা প্রতিনিধি মাগুরা:

মাগুরার মহম্মদপুরের দীঘা ইউনিয়নের পাল্লা-শীরগ্রাম মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে ১জন নারী সহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে। বুধবার বিকালে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এঘটনায় ০৫ জনকে আটক করেছে মহম্মদপুর থানা পুলিশ।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বুধবার বিকালে বাবুখালী ইউনিয়ন ও দীঘা ইউনিয়নের মধ্যে পাল্লা শীরগ্রাম মাঠে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। খেলায় বাবুখালী ইউনিয়ন দীঘা ইউনিয়নকে ৩ গোল দিলে দীঘা ইউনিয়নের খেলোয়াড় পাল্লা গ্রামের মোস্তাকের ছেলে ছামাদ (২৫) তার নিজশ্ব খেলোয়াড় ইদ্রিস মোল্লার ছেলে আইয়ুব আলী’র (১৭) উপর ক্ষিপ্ত হয়ে কিল ঘুষি মারতে থাকে। এসময় মাঠের বাইরে থাকা সমর্থকেরাও মাঠে প্রবেশ করে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে উভয়পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হয়।

আহত ব্যক্তিরা স্থানীয় সাবেক মেম্বর আলম নবী গ্রুপ ও সাবেক মেম্বর আছাদ গ্রুপের সমর্থক বলে জানা গেছে।

আহতদের উভয় পক্ষের ১০ জন কে মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তী করা হয়েছে। বাকিরা প্রাথমিক চিকিৎসা গ্রহণ করেছেন। হাসপাতালে ভর্তী আছাদ মেম্বর গ্রুপের আহত ব্যক্তিরা হলেন পাল্লা গ্রামের মৃত ইদ্রীস মোল্যার ছেলে মো: তুহিন মোল্যা (৩০), সাজ্জাদ মোল্যা (৪৫), মৃত মজিদ মোল্যার ছেলে সাদেক মোল্যা (৪০), ছবির হোসেন (৫৫), মৃত আকতার মোল্যার ছেলে আশরাফুল ((৩১), সাদেক মোল্যার স্ত্রী ফজিলা বেগম (৩৮) এবং আলম নবী গ্রুপের মৃত আব্দুস সালামের ছেলে গোলাম হায়দার (৪৫), গোলাম রসূল (৬০), মোস্তাক হোসেন (৫০) ও গোলাম রসূলের ছেলে সোহেল রানা (২৬)।

আটককৃতরা হলেন আবজাল মোল্যার ছেলে রিয়াজ (২২), ছবিরের ছেলে নাসির (২০), মোস্তাকের ছেলে ছামাদ (২৬), জয়দার শেখের ছেলে আলীম (১৮), গোলাম রসুলের ছেলে শরিফুল (২৭)।

মহম্মদপুর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: নাসির উদ্দিন বলেন, ঘটনাস্থাল থেকে ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। পুনরায় সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.