মানিকগঞ্জ থেকে মো. নজরুল ইসলাম (২৫-০৬-২০২১)

কাঙ্গাল মাহাম পাগলার উক্তি দিয়েই শুরু করছি- ”নাই আমার ঘর আর বাড়ী তবুও আমি আশা করি, বাবার উরশ যেন করতে পারি। কি হবে মোর ধন সম্পদে আজ মরলে কাল দুইদিন হবে,তাই সবাই মোরে কইরেন দোয়া, আমি করতে পারি যেন এই মানুষ সেবা।” দীর্ঘদিন ধরে দেখছি মানিকগঞ্জ পৌরসভাধীন পশ্চিম দাশরার একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে একজন পাগল থাকেন। ঝাকড়া ও জটাচুলের বাধনে লালপোশাক পরিহিত মানুষটি কখনো একা খালি পায়ে হাটেন আবার কখনো তার জীবন সঙ্গীনিকে সাথে নিয়ে মানবসেবার গাড়ি চালান। চা,পান,চটপটি,ফুসকাসহ হরেক জিনিস নিয়ে হকার শ্রমিক হয়েও সেবামূলক কাজে নিজেকে নিয়েজিত রাখেন। তাকে জানতে ই”েছ হলো গভিরভাবে তাই দফায় দফায় আসি পাগলের কাছে।

জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্যমতে পাগলের নাম মাহাম বেপারী (৬২)। পিতা মৃত আলেফ বেপারী,মাতা আমিরজান বেগম ও স্ত্রী আছিয়া বেগম। পিতামহের নিবাস ছিলো ঢাকা জেলার নবাবগঞ্জ উপজেলার  বারুয়াখালী গ্রামে।নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়ে তার পিতা বাড়ি করেন মানিকগঞ্জ জেলাধীন সিংগাইর উপজেলার জামশা ইউনিয়নের জামশা ধলেশ^রী নদীর তীরে। গ্রামীণ যৌথ প্রান্তিক ও ক্ষেতমজুরভিত্তিক পরিবারে বেড়ে ওঠা মাহাম পাগলার জীবনে রয়েছে অনেক সংগ্রামের অধ্যায়।

ছোটবেলা থেকেই তিনি ছিলেন বাউন্ডেলে স্বভাবের তাই মানুষের পছন্দ অপছন্দের ভিরে পরিবার ও সমাজে বাস করার আগ্রহ কমতে থাকে। গান বাজনা ও বিভিন্ন যাত্রার দলে ঘুরে বেরাতেন বলে বাড়ির কেউ তার খোজ রাখতো না। প্রাতিষ্ঠাডিনক স্কুলের প্রতি তার আগ্রহ ছিলো কম তবে পীর মুরশিদের স্কুলের প্রতি ঝোক ছিলো বেশি। ছোটবেলায় বাবার মৃত্যুর পর পারিবারিকভাবে সুবিধাবঞ্চিত হয়ে তিনি চরমভাবে আহত হন এবং তার হৃদয়ে দাগ কাটে যে আমরা কোথায় ছিলাম কোথায় এলাম কোথায় যাব। এই ভাবনায় তিনি নিজের ভিতর পরম ইশ^রের খোজে তথা মওলার খোজে অসাম্প্রদায়িক মানবতাবাদের চেতনা নিয়ে আশেকান পীর মুরশিদের দরবার ও মাজার শরিফে ঘুরে বেরান দেশ বিদেশের  প্রান্ত থেকে  প্রান্তে।

মওলার পাগল হয়ে কাঙ্গাল মাহাম পাগলার জীবনের একটি বড় অধ্যায় কাটে ঢাকার মীরপুরে হযরত বাবা শাহ আলীর দরবার শরিফে। তারপর বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলের বাগেরহাট জেলার প্রতাপশালী আউলিয়া হযরত বাবা শাহ খানজাহান আলীর মাজার শরিফে এসে হযরত বাবা নূর মুহাম্মদ চিশতির নিকট তিনি দিক্ষা গ্রহন করেন। অল্প সময়ের মধ্যেই গুরু তার প্রতি খুশি হয়ে খেলাফত প্রদান করেন এবং বিয়ে করে সংসার করার মন্ত্রনা দিয়ে দেন। মাহাম পাগল রাজি না হলেও তার গুরু তাকে বলেন সংসার সাগর পারি না দিয়ে মওলাকে পাওয়া যাবে না। সংসার মায়াজাল থেকে তাকে সিদ্ধ করেই  পরধামের জন্য মুক্তি নিতে হবে।এই মন্ত্রনা নিয়ে তিনি তরিকার ভাইদের সহযোগীতা নিয়ে মহাদেবপুর গ্রামের আছিয়া বেগমকে বিয়ে করেন। বিয়ের পরই জীবন সারথীকে সাথে নিয়ে শুরু হয় জীবন সংগ্রামের নতুন অধ্যায়।তরিকার ভাই সালাম পাগলাসহ আশেকানদের টানে ছুটে আসেন মানিকগঞ্জ শহরে। তরিকার ভাইদের বাড়িতে কিছুদিন আশ্রয় নিয়ে কাজ শুরু করেন পথে পথে  হকারি। আরিচা ফেরি ঘাটে দীর্ঘদিন চলে তার এই জীবন সংগ্রাম। আরিচা ঘাট পাটুরিয়া যাওয়াতে তিনি চরমভাবে  আহত হন এবং ফেরিঘাটের হকারি বাদ দিয়ে ক্ষোভে দু:খে নতুন কিছু করার স্বপ্ন নিয়ে একেবারেই মানিকগঞ্জ শহরে চলে আসেন।

তারপর বিভিন্ন বাসায় ভাড়া থেকে এখন মোটামুটি ¯ি’র আছেন পশ্চিম দাশরার চার রাস্তার মোরে সুলতান মিয়ার বাড়িতে।পরিত্যক্ত এই বাড়িতে থাকলেও বাসাভাড়া,গ্যাস,পানি,বিদ্যুতসহ তাকে ¯’য়িী খরচা হিসেবে গুনতে হয় প্রতি মাসে তিন থেকে সারে তিন হাজার টাকা। পোশাক চিকিৎসা খাওয়াসহ কম হলেও আরো দরকার নয় থেকে দশ হাজার টাকা। মোট কথা প্রতিদিন তার অন্তত পাচশত টাকা রোজগার দরকার হলেও স্বামী স্ত্রী মিলে পুরি,ছোলা,পিয়াজও বানিয়ে দুইশত থেকে আরাইশত টাকার বেশি রোজগার করতে পারে না। তারপর ঝড়বাদল তো আছেই প্রতিদিন কাজ সম্ভব নয়। বৈশি^ক মহামারী করোনাকালের কঠিন জীবন সংগ্রামের মধ্যেও পাগল না খেয়ে হলেও ঘরভাড়া নিয়মিত দিতেন। কিš‘ বর্তমানে মহামারী করোনাকালসহ নানাবিধ প্রতিকুলতা কাটিয়ে উঠতে না পারায় তিনিও ঋণের দুষ্টচক্রে পরতে বাধ্য হয়েছেন। পাগল মাহাম বলেন একদল বকধার্মিক আমার পাকপবিত্রতা নিয়ে গোপনে কুৎসা রটায় এবং অন্যেরা যাতে আমার হাতের পুরি না খায় সেই কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকে ফলে বেচাবিক্রি একটু কম হয়। তারপরও সাম্প্রদায়িক এই পশুত্বের বিরুদ্ধে আমার কোন অভিযোগ নেই তবে বিলাপ করি যে সমাজ এখন গজগজা সাম্প্রদায়িকতায় ভরপুর। মানুষ মসজিদে গিয়ে নামাজ পড়–ক আর না পড়–ক ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়িতে ব্যাস্ত। নিজের খবর না করে কে অযু ও নামাজ কিভাবে পড়লো,পাক না নাপাক ও আস্তিক না নাস্তিক এই নিয়ে কাইজা ঝগড়ায় ব্যাস্ত। সমাজের সকল স্তরে এই দৃশ্য দেখে আমি আরো মর্মাহত।

পাগল আরো বলেন-রাত জেগে গান গাওয়ার অভ্যাস ত্যাগ করতে পারি নাই। কাজের ফাকে রাতে গান করলে আবার দিনে কাজ করা মুশকিল হয়। আয় রোজগার যা হয় সেগুলো নিয়ে আবার ছুটে যাই বাবার মাজারসহ বিভিন্ন দরবার শরিফে। ভারতের আজমির শরিফে হযরত খাজা মইনুদ্দিন চিশতি (র.) দরবার শরিফে একাধিকবার ভ্রমন করার অবিজ্ঞতায় আমি ধন্য হয়েছি।

ইতেমধ্যে আমার জীবনের বেলা শেষে সংসার বড় হয়। অসময়েই মেয়েদের পরের বাড়িতে বিয়ে দিয়ে এবং ছেলেকে মানুষের মতো মানুষ না করতে পারার বেদনা আমাকে আরো আহত করে। তারপরও আমার প্রতি স্ত্রী, দুই কণ্যা ও পুত্র তারা খুশি থাকলে আমি মহাখুশি। তারপরও সংসারের সবাইকে রেখে বিভিন্ন দরবারে ঘুরলেও আমার স্ত্রী আছিয়া বেগমের কোন অভিযোগ নেই। শুধু তাই নয় আমার অনুপ¯ি’তিতে আমার  প্রাণপ্রিয় সহধর্মিনী পশ্চিম দাশরা মোরে চিতই পিঠা,ছোলা ও পুরি বিক্রি করে সংসার সামাল দেন। সংসারে ছেলেমেয়েরা বড় হলে তাদের প্রয়োজন বারতে থাকে তাই পাগল মাথায় হাত দেয় এবং চিন্তা করে যে সংসারের বাসনা মনে চিলো না বলেই সঞ্চয় করিনি এবং এটি আমার দ্বারা হবেও না। আমি মানুষের দেওয়া ভালোবাসা ও টাকা পয়সা যা পেয়েছি তার সবই যে ঘাট দিয়ে এসেছে সেই ঘাটেই ব্যয় করেছি। তাতে আমার দোষ কি মুরশিদ ভরসা।পাগল বলেন সংসার সমারঙ্গনের শেষ বেলায় এসে স্ত্রী পুত্র

Leave a Reply

Your email address will not be published.