সিরাজদিখান (মুন্সিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখানে অবৈধ ড্রেজার দিয়ে  তিন ফসলী জমি ভরাটের  অভিযোগ উঠেছে ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে। এতে করে ফসল উৎপাদন  নিয়ে হুমকিতে পরেছে ওই এলাকার  ফসলী জমির মালিক। নিয়ম নীতির কোন প্রকার তোয়াক্কা না করে  চলছে তিন ফসলী জমি ভরাট  কর্মযজ্ঞ।

গত  বৃহস্পতিবার  সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায, উপজেলার ইছাপুরা   ইউনিয়নের পশ্চিম কুসুমপুর  চকের   প্রায় ৬৩ শতাংশ জমিতে অবৈধ ড্রেজারের মাধ্যমে বেশ  কয়েক দিন ধরে একটি জমি বাড়ী বানানোর জন্য ভরাট করে আসছেন ইছাপুরা ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ড সদস্য মোঃ  আব্দুল মান্নান ওরফে জমির আলী । সরকারী নিয়মনীতির কোন প্রকার তোয়াক্কা না করে নির্বিঘ্নে চলছে ফসলী জমি ভরাট কর্মযজ্ঞ ।

স্থানীয়  কৃষকদের   সাথে কথা বলে জানা যায়, ইছাপুরা  ইউনিয়নের পশ্চিম কুসুমুপুর চকের কৃষি জমিগুলোতে শুকনো মৌসুমে আলু,পাট, সরিষা ও ভুট্টা এবং বর্ষা মৌসুমে বিভিন্ন জাতের ধান  আবাদ করা হয়। ইউপি সদস্য মোঃআব্দুল মান্নান এ  জমিটি ভরাট করছেন। ফলে তিন  ফসলী জমিগুলো চরম ভাবে ক্ষতি গ্রস্থ হওয়ার উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে। স্থানীয়  অনেক কৃষক ক্ষতির সম্মূক্ষিন হওয়া স্বত্বেও  ইউপি সদস্যের কারণে কিছুই বলতে পারছেন না।  এমনকি প্রতিবাদ করা থেকেও দূরে থাকতে হচ্ছে তাদের।

এবিষয় ইছাপুরা ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ড সদস্য মোঃ আব্দুল মান্নান বলেন , আমি শ্রেণী পরিবর্তনের জন্য কাগজ পত্র জমা দিয়েছি আমাকে তারা আমাকে শ্রেনী পরিবর্তনের জন্য বলেছেন ।

এবিষয় মুঠোফোনে ড্রেজার মালিক মোঃ রিপন মিয়া জানআন, আমাক ইউপি সদস্য বলেছে তাই আমি তার জমি ভরাটের কাজ করছি সে যদি আমাক নিষেধ করে আমি করবো না । আপনি যদি আমকে আপনার জমি ভরাটের জন্য বলেন আমি আপনার জমি ও ভরাট করে দিবো ।

এবিষয় উপসহকারী ভুমি মোঃ সোলাইমান  আলমগীর হোসেন বলেন, আমার নিকট কোন প্রকার  শ্রেনী পরিবর্তনের ছাড়পত্রের  জন্য কোন কাগজ আসেনি এবং আমার জানা মতে ইউনো বা এসিলেন্ট স্যারের নিকট ও যায়নি গেলে অবশ্যই আমার নিকট তদন্ত আসতো ।  

Leave a Reply

Your email address will not be published.